Latest Update

জেনে নিন ২০১৯ এর সেরা ফ্রিজ ও ডিপ ফ্রিজগুলো সম্পর্কে

Linux Host Lab Ads

চলেই আসছে পবিত্র রমজান মাস এর পর পরই কোরবানির ঈদ। আর বিশেষ করে এই ঈদের আগেই শুরু হয়ে যায় ফ্রিজ ও ডিপ ফ্রিজ কেনার ধুম। ভালো মানের ভালো ব্র্যান্ডের ফ্রিজটি কিনতে হলে অবশ্যই আগে থেকে প্রস্তূতি নেয়া ভালো। তাই চলুন জেনে নেই এই বছরের কিছু ভালো ব্র্যান্ডের ফ্রিজ এবং ফ্রীজার সম্পর্কে-

SAMSUNG রেফ্রিজারেটর

Samsung fridge bd

ডিজিটাল ইনভার্টার প্রযুক্তি ব্যবহার করে ৫৭ শতাংশ পর্যন্ত বিদ্যুৎ সাশ্রয় করে SAMSUNG. আর রেফ্রিজারেটরগুলোও এমনভাবে তৈরি করা হয়, যাতে সোলার সিস্টেমেও চলতে পারে। এ ছাড়া ৩১ শতাংশ দ্রুত ঠাণ্ডা হয় এটি।

SAMSUNG RB21 মডেলের ফ্রস্ট রেফ্রিজারেটরের দাম ৩৮ হাজার ৯০০ টাকা। নন-ফ্রস্ট মডেলগুলোর দাম ৪৩ হাজার ৯০০ থেকে তিন লাখ টাকা পর্যন্ত। তাদের RT28 মডেলের ২৫৩ লিটারের রেফ্রিজারেটরের দাম ৪৩ হাজার ৯০০, RT30 ২৭৫ লিটারের দাম ৪৭ হাজার ৯০০, RT34 ৩২১ লিটারের দাম ৫১ হাজার ৯০০, একই মডেলের আরেকটি ভিন্ন রঙের দাম ৫২ হাজার ৯০০, RT37 ৩৪৫ লিটারের দাম ৫৪ হাজার ৯০০, RT39 ৩৯৪ লিটার রেফ্রিজারেটরের দাম ৭০ হাজার ৯০০ টাকা।

Linux Host Lab Offer

এ ছাড়া তাদের টুইন কনভার্টেবল ফ্রিজার রয়েছে। ফ্রিজটি চাইলে নরম্যালকে ডিপ এবং ডিপকে নরম্যাল করা যাবে। RT42 ৪১৫ লিটারের এমন একটি ফ্রিজের দাম ৭৪ হাজার ৯০০ টাকা।

SAMSUNG – এর বড় মাপের ডাবল ডোর, ডোর ইন ডোর ফ্রিজার রয়েছে কয়েকটি মডেলের। এর মধ্যে RS51 টুইট কুলিং সিস্টেমের দাম এক লাখ ৬০ হাজার ৯০০, ডোর ইন ডোর RS51 ৫৮৭ লিটার দুই লাখ চার হাজার ৯০০, RF60 মডেলের চার দরজার ৬৯৩ লিটারের ফ্রিজারের দাম দুই লাখ ৬৯ হাজার ৯০০ এবং RH77 ৮৩৮ লিটারের দাম পড়বে দুই লাখ ৯৫ হাজার ৯০০ টাকা।

নন-ফ্রস্ট কিন্তু পুরোটাই ডিপ এমন একটি ফ্রিজার রয়েছে স্যামসাংয়ের। RZ32 মডেলের এই ফ্রিজার পাওয়া যায়, যার দাম ৮৭ হাজার ৯০০ টাকা।

TRANSTEC রেফ্রিজারেটর

Transtec fridge bd

বাজারে ট্রান্সটেক ব্র্যান্ডের ফ্রিজের ম্যানুফ্যাকচারার হচ্ছে ট্রান্সকম ইলেক্ট্রনিক্স লিমিটেড। ট্রান্সটেক এর ফ্রিজ এবং ডিপ ফ্রিজারগুলো ভালো কোয়ালিটির জন্য কারোরই অজানা নয়। এই ব্র্যান্ডেও দেখা মিলবে ফ্রস্ট এবং নন-ফ্রস্ট ফ্রিজগুলো। এই TRZ-290 নন-ফ্রস্ট ফ্রিজটি পাওয়া যাবে ৩৯,৯০০ টাকায় এবং ফ্রস্ট ফ্রিজের মধ্যে BCD-196 RED মডেলের ফ্রিজটি পাওয়া যাবে ২৮,৫০০ টাকায়। এছাড়াও এই ব্র্যান্ডের ডিপ ফ্রিজগুলো পাওয়া যায় সর্বনিন্ম ২০,০০০ থেকে সর্বোচ্চ ৪০,০০০ টাকা পর্যন্ত।

HITACHI রেফ্রিজারেটর

Hitachi refrigerator bd

HITACHI ব্র্যান্ড ফ্রিজের জন্য কতটা ভালো সেটা বলার অপেক্ষা রাখেনা। জাপান সিরিজের হিটাচি রিফ্রেজারেটরগুলো আভিজাত্যের ছোয়া দেয়। এই ব্র্যান্ডের নন-ফ্রস্ট ফ্রিজগুলো সর্বনিন্ম ৫৩,৯০০ থেকে সর্বোচ্চ ৪,৩৫,০০০ টাকা পর্যন্ত হয়। এই মধ্যে আছে কনভার্টিবল, ডাবল ডোর ফ্রিজ, মাল্টি ডোর ফ্রিজ, সাইড বাই সাইড ফ্রিজসহ জাপান সিরিজের ফ্রিজগুলি।

WALTON রেফ্রিজারেটর

Walton fridge

বর্তমানে ৯০ মডেলের ফ্রস্ট (ডিরেক্ট কুল), ২১ মডেলের নন-ফ্রস্ট এবং ১০ মডেলের ডিপ ফ্রিজ উৎপাদন ও বাজারজাত করছে WALTON। চলতি বছরই যুক্ত হয়েছে ৪১টি মডেল। দাম ১০ হাজার ৯০০ থেকে ৩৭ হাজার ৫০০ টাকার মধ্যে। এর মধ্যে টেম্পারড গ্লাস ডোরের ১৭টি নতুন মডেলের রেফ্রিজারেটর বাজারে এসেছে ।

ন্যানো হেলথ কেয়ার ও ইনভার্টার প্রযুক্তির গ্লাস ডোরের ফ্রস্ট রেফ্রিজারেটর বিক্রি হচ্ছে বেশি। ৩৬৫ লিটার বা ২১ সিএফটির এই রেফ্রিজারেটরের দাম পড়বে ৩৭ হাজার ৫০০ টাকা। আর ৩৩৩ লিটার বা ১৯ সিএফটির দাম ৩৫ হাজার ৬০০ টাকা। টেম্পারড গ্লাস ডোরের ২০৫ লিটারের রেফ্রিজারেটর পাওয়া যাবে ২৫ হাজার ৪৯০ টাকায়। ৫০ লিটারের এক দরজার ‘ব্যাচেলর ফ্রিজ’ পাওয়া যায় ১০ হাজার ৯০০ টাকায়।

২১টি মডেলের নন-ফ্রস্ট ফ্রিজ রয়েছে ওয়ালটনের। পাওয়া যাচ্ছে ২৭ হাজার ২০০ থেকে ৫৬ হাজার ৩০০ টাকার মধ্যে। নতুন মডেল এসেছে আটটি। এর মধ্যে রয়েছে তিন দরজাবিশিষ্ট ৪৫৫ লিটার ও ৪৫২ লিটারের বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী ইন্টেলিজেন্ট ইনভার্টার প্রযুক্তির দুটি নন-ফ্রস্ট রেফ্রিজারেটর। দাম যথাক্রমে ৫২ হাজার ৯৯০ এবং ৫৪ হাজার ৯০০ টাকা। আরো আছে ‘সাইড বাই সাইড’ বা পাশাপাশি দুই দরজাবিশিষ্ট ৫০১ লিটারের রেফ্রিজারেটর, যার দাম ৫৬ হাজার ৩০০ টাকা।

এসব রেফ্রিজারেটরের গায়ে বরফ জমে না। ইন্টেলিজেন্ট ইনভার্টার টেকনোলজির এই রেফ্রিজারেটর বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী। এতে আলাদা ভোল্টেজ স্ট্যাবিলাইজার ব্যবহার করার প্রয়োজন নেই। এসব রেফ্রিজারেটরে ব্যবহৃত হয়েছে সম্পূর্ণ এইচসিএফসি এবং সিএফসিমুক্ত পরিবেশবান্ধব আর৬০০এ গ্যাস।

LG রেফ্রিজারেটর

lg fridge bd

তাইওয়ানিজ ব্র্যান্ড LG রেফ্রিজারেটরে প্রথম যুক্ত হয় ইনভার্টার লিনেয়ার কম্প্রেসর প্রযুক্তি। দেশের বাজারে এলজির ফ্রস্ট ও নন-ফ্রস্ট দুই ধরনের রেফ্রিজারেটর রয়েছে। ফ্রস্ট রেফ্রিজারেটরের দাম শুরু হয়েছে ২৯ হাজার ৯০০ থেকে সর্বোচ্চ ৪৪ হাজার ৯০০ টাকার মধ্যে। নন-ফ্রস্টগুলোর দাম ৩০ হাজার থেকে শুরু করে আড়াই লাখ টাকা পর্যন্ত।

দরজায় টোকা দিলে ভেতরে আলো জ্বলে উঠবে, পুরো ফ্রিজের দরজা না খুলে মাঝের একটি ছোট দরজা খুলে প্রয়োজন মেটানো যাবে আর সবকিছু নিয়ন্ত্রণ করা যাবে মোবাইল অ্যাপ থেকে—এমন সব সুবিধা নিয়ে একটি ফ্রিজ রযেছে এলজির। দাম দুই লাখ ২৮ হাজার ৯০০ টাকা।

নন-ফ্রস্ট রেফ্রিজারেটরের মধ্যে জিটি-ডি৪৪১বিএল এক লাখ ৯ হাজার ৯০০, জিকে-এল৪৩২ ৭৯ হাজার ৯০০, ২৫২আরএলবিএন ৪৮ হাজার ৯০০, জিএন বি৩৭২এসএলসিজি ৫৯ হাজার ৯০০ এবং জিএন-বি২৭২ ৪৯ হাজার ৯০০ টাকায় পাওয়া যাবে।

তো কবে যাচ্ছেন ফ্রিজ মার্কেটে আপনার বাজেটের মধ্যে সবচেয়ে ভালো ফ্রিজটি কেনার জন্য?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ক্যাপচাটি লিখুন * Time limit is exhausted. Please reload CAPTCHA.